Quote

শরৎচন্দ্রের জন্মদিনে

সুন্দর কিছুর তুলনা যদি চাঁদের সাথে করা হয় আর সু-স্বাদু কোন খাবারের তুলনা যদি মধুর সাথে করা হয় তাহলে রোম্যান্টিক বিষয়াদিকে তুলনা করতে হবে শরৎচন্দ্রের উপন্যাসের সাথে।

কালের আবর্তনে বাঙ্গালীরা আজ অনেক আধুনিক, অনেক পরিবর্তন এসেছে এদের বেশভুষায়, পরিবর্তন এসেছে রুচি ও স্বাদে। কিন্তু এত কিছুর পরও শরৎবাবুর লেখা ঠিক ততদিন বেঁচে থাকবে যতদিন বাঙ্গালীর নামটি বেঁচে থাকবে।
প্রেম-ভালোবাসার কথা লিপিবদ্ধ করতে গিয়ে তিনি হিন্দু সমাজের কুসংস্কার, রাজ্যের অভাব অনটন ও সর্বনাশা মহামারির থেকে শুরু করে তৎকালীন নারী সমাজের প্রতি অবহেলার কথা অবলীলায় ফুটিয়ে তুলেছেন। নর-নারীর ভালোবাসার মাঝে দৈহিক প্রেমের পার্থক্য এবং মিল; এই দুটি বিষয়কেই তিনি অতি রুচিশীল ভাবে বর্ণনা করে গেছেন। ভালোবাসার মানে শুধু কাছে পাওয়া অথবা উপঢৌকন দেওয়া নেওয়া নয়, বরং বড় ভালোবাসা যে অনেক দুরেও ঠেলে দেয় তা শরৎবাবু উদাহরন সহ বুঝিয়েছিলেন। ভালোবাসার রোম্যান্টিকতা মুখ দিয়ে বার বার প্রকাশ করার মাঝে নয় বরং রোম্যান্টিকতার আসল রুপ হল রুচিশীলতা ও পবিত্রতা, রোম্যান্টিকতার কন্ঠ বড় নির্বাক কিন্তু হৃদয়ের পরম অনুভূতি সমুহের কোলাহলে পরিপূর্ণ।

সংস্কারবাদী নন্দিত এ কথাশিল্পী বেঁচে থাকুক তার কর্মের মাধ্যমে, প্রতিটি বাঙ্গালীর হৃদয়ে, বাংলার ঘরে ঘরে প্রতিটি পবিত্র ভালোবাসার যুগলে, প্রতিটি আধুনিক দেবদাসের শেষ চিঠিতে, অবহেলিত প্রতিটি বাঙ্গালী রমণীর হৃদয়ে… অনন্তকাল।

আপনার মন্তব্য

মন্তব্য